দেশের সময় ওয়েবডেস্কঃ সূত্রের খবরই সঠিক হল । আগামী ‌২৪–২৫ ফেব্রুয়ারি ভারত সফরে আসছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প। সরকারিভাবে এই কথা ঘোষণা করেছে হোয়াইট হাউস। ফলে চলতি মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে নয়াদিল্লি সরগরম থাকবে।

বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে, প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডি দিল্লি এবং আহমেদাবাদ সফরে যাবেন। গুজরাটে রয়েছে মহাত্মা গান্ধীর জীবনী এবং ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতৃত্বে তাঁর বিশেষ অবদান। তা সম্পর্কে জানবেন তাঁরা। নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে ফোনে কথা বলে ভারত সফরের ব্যাপারে নিজের সম্মতি জানিয়েছেন ট্রাম্প।

এই সফর ভারত–মার্কিন বন্ধুত্ব আরও মজবুত করবে। এমনকী দু’‌দেশের মানুষের মধ্যে বন্ধন আরও দৃঢ় করবে বলে আশা করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।
উল্লেখ্য, প্রেসিডেন্ট হিসেবে প্রথমবার ভারত সফরে আসছেন ট্রাম্প। এখানে ‘‌হাউডি মোদি’‌র আদলে আয়োজিত ‘‌কেম ছো, ট্রাম্প’‌–এ যোগ দেবেন তিনি। ট্রাম্প–মোদি মিলে মোতেরা স্টেডিয়ামের উদ্বোধন করবেন বলে খবর। তাই ১,১০,০০০ আসনবিশিষ্ট বিশ্বের বৃহত্তম ক্রীড়াঙ্গন তৈরির কাজ তড়িঘড়ি শেষ করার কাজ চলছে বলে খবর।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ভারতে আসছেন আগামী ২৪ ফেব্রুয়ারি। তার আগে আমেরিকা থেকে সেনা হেলিকপ্টার কেনার ব্যবস্থা পাকা করে ফেলছে ভারত। লকহিড মার্টিন নামে এক সংস্থা হেলিকপ্টারগুলি ভারতকে বিক্রি করবে। তার মূল্য ২৬০ কোটি মার্কিন ডলার। অর্থাৎ ১৮ হাজার ৫১৬ কোটি টাকার কিছু বেশি। তার নাম ২৪ এমএইচ সিক্সটি আর সি হক হেলকপ্টার। সেগুলি নৌবাহিনী ব্যবহার করবে।

এর আগে চিনের সঙ্গে আমেরিকার বাণিজ্যযুদ্ধ নিয়ে ভারত যে অবস্থান নিয়েছিল, তা ট্রাম্পের পছন্দ হয়নি। তাছাড়া ভারতে বিদেশি পণ্যের ওপরে বেশি শুল্ক চাপানো নিয়েও তিনি অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন। ভারতকে তিনি বলেছিলেন ‘ট্যারিফ কিং’। ট্রাম্পের সফরের আগে তাঁর সঙ্গে সব ভুল বোঝাবুঝি মিটিয়ে নিতে তৎপর মোদী সরকার।

২০০৭ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত আমেরিকা থেকে মোট ১৭০০ কোটি ডলারের প্রতিরক্ষার সরঞ্জাম কিনেছে ভারত। তার আগে মূলত রাশিয়া থেকে যুদ্ধাস্ত্র কেনা হত। কিন্তু চিনের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর জন্য আমেরিকা থেকে অস্ত্রশস্ত্র কেনা শুরু হয়।

ভারত সরকারের একটি সূত্র জানিয়েছে, আগামী দু’সপ্তাহের মধ্যে মোদীর নেতৃত্বে নিরাপত্তা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভার কমিটি আমেরিকা থেকে সি হক হেলিকপ্টার কেনার ব্যবস্থা পাকা করে ফেলবে। এসম্পর্কে ভারতের সঙ্গে চুক্তি হবে ট্রাম্প সরকারের। সরাসরি লকহিড মার্টিন থেকে কিনতে গেলে অনেক সময় লাগত। তাই মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতরের মারফৎ কেনা হবে সি হক।


নৌবাহিনীর অনেক জাহাজেই এখন হেলিকপ্টার নেই। মূলত অর্থের অভাবেই হেলিকপ্টার কেনা যায়নি। ২০২০-২১ সালের কেন্দ্রীয় বাজেটে প্রতিরক্ষা খাতে বরাদ্দ করা হয়েছে ৫ লক্ষ ২৪ হাজার ৩৯৫ কোটি টাকার বেশি। এই বরাদ্দের পরিমাণ গত বছরের তুলনায় সামান্য বেড়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.