দেশেরসময়ওয়েবডেস্কঃ এবার বাংলায় রাহুলের প্রথম নির্বাচনী সভা। শুক্রবার দুপুরে একদফা হেলিকপ্টারের মহড়া হয়ে গেছে। এসপিজি পৌঁছে গেছে। মঞ্চের চার পাশে নিরাপত্তা বলয় তৈরি হয়েছে। রাহুল গান্ধীর সঙ্গে থাকবেন পশ্চিমবঙ্গের ভারপ্রাপ্ত পর্যবেক্ষক গৌরব গগৈ। শনিবার সকালে পৌঁছে যাবেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতারা।

জেলা কংগ্রেসের কার্যনির্বাহী সভাপতি কালীসাধন রায় ‌বলেন,‌ ‘‌পূর্ণিয়া থেকে হেলিকপ্টারে চাঁচল কলাবাগান মাঠে নামবেন রাহুল গান্ধী। ’‌
এখন মালদায় টান টান উত্তেজনা।
মৌসম নুর কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর অনেকটাই কোণঠাসা জেলা কংগ্রেস। তাই উদ্বেগের চোরাস্রোত কংগ্রেস শিবিরে। একই দিনে অঞ্চল কমিটির সভার ডাক দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসও।
একই দিনে তৃণমূলের সভা হওয়ায় সমালোচনার সুর কংগ্রেস নেতাদের মুখে। তাঁদের দাবি,‘‌এই অজুহাতে অনেক বাস তুলে নেওয়া হবে।’‌ যদিও তৃণমূল শিবিরের বক্তব্য, মৌসম নুর কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার পর থেকে ব্যাকফুটে চলে গেছে মালদা কংগ্রেস।

মরিয়া কংগ্রেস রাহুল গান্ধীকে এনে ক্ষত মেরামতের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তা না হলে রাতারাতি প্রার্থী ঘোষণা করে রাহুলের সভা মালদায় ঠিক হয়ে যায় কী করে?‌ মুশির্দাবাদ অথবা দক্ষিণ মালদায় তো সভা করছে না কংগ্রেস।

মালদা উত্তর কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মৌসম নুর এর কথায়, ‘‌কংগ্রেসের লোকজন কোথায়?‌ ওদের মাটি এখন আর নেই। এটা এখন তৃণমূলের মাটি হয়ে গেছে। আমরা অঞ্চল কমিটির বৈঠক ডাকব কি ডাকব না, সেটা তৃণমূল কংগ্রেসের বি‌ষয়।

কংগ্রেস বলার কে?‌ আসলে ওরা বুঝতে পেরেছে, রাহুল গান্ধীর সভায় লোক হবে না। তাই তৃণমূলের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে নিজেদের দায় এড়ানোর চেষ্টা করছেন কংগ্রেস নেতারা। সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরি বলেন, ‘‌রাহুল গান্ধীর সভাকে ওরা ভয় পাচ্ছে। তাই একই দিনে অঞ্চল কমিটির সভা ডেকেছে।
এ ব্যাপারে প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীকে জিজ্ঞাসা করে হলে তিনি বলেন,আমরা তো আছি। পুষিয়ে দেব।

Previous articleনৈহাটি পুরসভার ভাঙন ধরালেন অর্জুন, ক্ষুব্ধ জ্যোতিপ্রিয়
Next articleরাজনৈতিক প্রতিবাদেও শালিনতা জরুরি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here