হীয়া রায় দিল্লি

প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে হ্যাটট্রিক। তৃতীয়বারের জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নরেন্দ্র মোদীর। রাষ্ট্রপতি ভবনে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন। উপস্থিত তাবড় রাষ্ট্রনেতারা। সাফাইকর্মী থেকে শুরু করে সুড়ঙ্গে আটকে পড়া শ্রমিক কিংবা রূপান্তরকামীগের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে নরেন্দ্র মোদী শপথ অনুষ্ঠানে।

 প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ নিলেন নরেন্দ্র মোদী,  মোদীর পরেই শপথ নিলেন বিদায়ী মন্ত্রিসভায় প্রতিরক্ষামন্ত্রী তথা লখনউয়ের সাংসদ রাজনাথ সিংহ।শপথ নিলেন অমিত শাহ,শপথ নিলেন গডকড়ী

নরেন্দ্র মোদী ছাড়াও আজ শপথ নিতে পারেন ৩০ জন, বিজেপির হাতেই গুরুত্বপূর্ণ ৪ মন্ত্রক
প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ গ্রহণ করবেন নরেন্দ্র মোদী। এছাড়া মোদীর ৩.০ মন্ত্রিসভার ৩০ জন সদস্য এদিন শপথ নিতে পারেন। অন্যদিকে, স্বরাষ্ট্র, প্রতিরক্ষা, অর্থ এবং রেল মন্ত্রক বিজেপির হাতেই থাকছে বলে সূত্রের খবর।

মোদীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে চাঁদের হাট
তৃতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রী পদে শপথ নেবেন নরেন্দ্র মোদী। এই অনুষ্ঠানের সাক্ষ্য হতে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব থেকে রাষ্ট্রপতি ভবনে উপস্থিত হয়েছেন শাহরুখ খান, অনন্ত আম্বানি থেকে সিজেআই ডিওয়াই চন্দ্রচূড়ও।

https://x.com/ANI/status/1799799827896877109?t=Wpx87B3oLPblQm2hkQObLw&s=19

https://x.com/ANI/status/1799795898698096719?t=4MjdgwP-PmA2p3ohdC0zzg&s=19

দেশের সময় :  বাংলা থেকে দুজনকেই মন্ত্রী করা হচ্ছে। একজন সুকান্ত মজুমদার ও অন্যজন শান্তনু ঠাকুর। এছাড়া ওড়িশাকেও বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

https://x.com/ANI/status/1799784995755831805?t=l8GKGTo4heC54XlikRbQZQ&s=19

বাংলার সব রাজনৈতিক দলের কাছেই পাখির চোখ মতুয়া ভোট। রাজনীতির আকচা-আকচিতে ঠাকুরনগরের ঠাকুর পরিবারেই ফাটল ধরতে শুরু করে। তবে শেষ হাসি হেসেছে বিজেপি। আবারও জয়ী হয়েছেন ঠাকুর পরিবারের সদস্য শান্তনু ঠাকুর। রবিবার নরেন্দ্র মোদী শপথ নেওয়ার আগেই ইঙ্গিত মিলেছে বাংলা থেকে মন্ত্রী হতে পারেন দুই সাংসদ। তাঁর মধ্যেই উঠে এসেছে শান্তনু ঠাকুরের নাম। এর আগে জাহাজ মন্ত্রকের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন তিনি, আর এবারও প্রতিমন্ত্রী হতে পারেন তিনি।

শান্তনু ঠাকুর বলছেন, ‘মন্ত্রিত্ব পাওয়ার আশা নিয়ে আমি রাজনীতি করতে আসিনি। যে দায়িত্ব পাব, সেটাই পালন করব।’ তবে এবারও মন্ত্রী হলে মতুয়াদের উন্নয়নের জন্যই কাজ করবেন বলে জানিয়েছেন শান্তনু। তিনি বলেন, “বিপিএলের থেকেও এদের খারাপ অবস্থা। ওপার বাংলায় এরা সম্পত্তি ফেলে চলে এসেছে। তাই সরকারকে এদের দায়িত্ব নিতেই হবে। তাদের উন্নয়ন কীভাবে করা যায়, সরকারের কাছে সেটা দেখার আবেদনই রাখব।”

https://x.com/ANI/status/1799770038385447149?t=c74DAaawEjdwW8cwuw1X2Q&s=19

শান্তনু উল্লেখ করেছেন, তৃণমূল কীভাবে মতুয়াদের মধ্যে ফাটল ধরাতে চেয়েছিল, মতুয়া পরিবারে ফাটল ধরাতে চেয়েছিল। তবে সব কৌশলই ব্যর্থ হয়েছে বলে দাবি করেন শান্তনু। তিনি দাবি করেছেন, উন্নয়নের জন্যই ভোট পেয়েছেন তিনি। তাঁর লোকসভা কেন্দ্রে বিপুল উন্নতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

https://x.com/ANI/status/1799764565854732418?t=YDTZGwZGQUXAaV25KhfPXA&s=19

সিএএ সম্পর্কে বলতে গিয়ে শান্তনু ঠাকুর বলেন, এনআরসি আমাদের বিষয় নয়। তবে সিএএ কার্যকর করে নাগরিকত্ব দেওয়ার উদ্দেশ্য সফল হয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

https://x.com/ANI/status/1799762196089672120?t=N28unwFTQQSnJTvlSZ6tqg&s=19

মোদীর মন্ত্রিসভায় মন্ত্রীদের পূর্ণাঙ্গ তালিকা
১. রাজনাথ সিং (বিজেপি)- উত্তর প্রদেশ
২. অমিত শাহ (বিজেপি)- গুজরাট
৩. লালন সিং (জেডিইউ)- বিহার
৪. পীযূষ গোয়াল (বিজেপি)- মহারাষ্ট্র
৫. প্রহ্লাদ জোশী (বিজেপি)- কর্নাটক
৬. মনসুখ মাণ্ডব্য (বিজেপি)- কর্নাটক

৭. জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া (বিজেপি)- মধ্য প্রদেশ
৮. সর্বানন্দ সোনোয়াল (বিজেপি)- অসম
৯. নীতীন গড়করি (বিজেপি)- মহারাষ্ট্র
১০. জুয়াল ওরাম (বিজেপি)- ওড়িশা
১১. চিরাগ পাসওয়ান (এলজেপি)- বিহার
১২. এসপি সিং বাঘেল (বিজেপি)- উত্তর প্রদেশ
১৩. রামদাস আঠাওয়ালে (রিপাবলিকান পার্টি অব ইন্ডিয়া)- মহারাষ্ট্র
১৪. জয়ন্ত চৌধুরী (রাষ্ট্রীয় লোকদল)- উত্তর প্রদেশ

১৫. শোভা করন্দলাজে (বিজেপি) কর্নাটক
১৬. পঙ্কজ চৌধুরী (বিজেপি)- উত্তর প্রদেশ
১৭. শ্রীপাদ নায়েক (বিজেপি)- গোয়া
১৮. কিরণ রিজিজু (বিজেপি)- অরুণাচল প্রদেশ
১৯. বিএল ভার্মা (বিজেপি)- উত্তর প্রদেশ
২০. কমলেশ পাসোয়ান (বিজেপি)- উত্তর প্রদেশ
২১. রবনীত সিং বিট্টু (বিজেপি)-পাঞ্জাব
২২. রামনাথ ঠাকুর (জেডিইউ)- বিহার
২৩. ডি কে অরুণা (বিজেপি)- তেলঙ্গানা
২৪. এইচডি কুমারস্বামী (জেডিএস)- কর্নাটক

২৫. এস জয়শঙ্কর (বিজেপি)- কর্নাটক
২৬. নির্মলা সীতারমন (বিজেপি)- কর্নাটক
২৭. ভূপেন্দ্র যাদব (বিজেপি)- রাজস্থান
২৮. রাও ইন্দ্রজিৎ (বিজেপি)- গুরগাঁও

২৯গিরিরাজ সিং (বিজেপি)- বিহার
৩০. ধর্মেন্দ্র প্রধান (বিজেপি)- ওড়িশা
৩১. অর্জুন রাম মেঘওয়াল (বিজেপি)- রাজস্থান
৩২. অন্নপূর্ণা দেবী (বিজেপি)- ঝাড়খণ্ড
৩৩. কৃষ্ণ পাল গুর্জার (বিজেপি)- হরিয়ানা
৩৪. মনোহরলাল খট্টর (বিজেপি)- হরিয়ানা

৩৫. হরদীপ সিং পুরী (বিজেপি)- উত্তর প্রদেশ

৩৬. অশ্বিনী বৈষ্ণব (বিজেপি)- ওড়িশা

৩৭. পবিত্র মার্গারিটা (বিজেপি)- ওড়িশা

৩৮. নিত্যানন্দ রাই (বিজেপি)- বিহার

৩৯. সুকান্ত মজুমদার (বিজেপি)- পশ্চিমবঙ্গ

৪০. অনুপ্রিয়া পটেল- (আপনা দল)- উত্তর প্রদেশ

৪১. সিআর পাটিল (বিজেপি)- গুজরাট

৪২. এল মুরুগান (বিজেপি)- কর্নাটক

৪৩. জিতিন প্রসাদ (বিজেপি)- উত্তর প্রদেশ

৪৪. জিতেন্দ্র সিং (বিজেপি)- জম্মু

৪৫. রাম মোহন নাইডু (টিডিপি)- অন্ধ্রপ্রদেশ

৪৬. বান্দি সঞ্জয় (বিজেপি)- তেলঙ্গানা
৪৭. শ্রীনিবাস ভার্মা (বিজেপি)- অন্ধ্রপ্রদেশ
৪৮. শিবরাজ চৌহান (বিজেপি)- মধ্যপ্রদেশ
৪৯. পি. চন্দ্রশেখর (টিডিপি)- অন্ধ্রপ্রদেশ
৫০. হর্ষ মালহোত্রা (বিজেপি)- দিল্লি
৫১. সঞ্জয় শেঠ-বিজেপি-ঝাড়খণ্ড
৫২. রক্ষা খড়সে (বিজেপি)- মহারাষ্ট্র
৫৩. পিসি মোহন (বিজেপি)- কর্নাটক
৫৪. জিতন রাম মাজি (হাম)- বিহার
৫৫. সতীশ দুবে (বিজেপি)- বিহার
৫৬. রাজভূষণ নিষাদ (বিজেপি)- বিহার
৫৭. বি সোমান্না (বিজেপি)- কর্নাটক

৫৮.বীরেন্দ্র খটিক (বিজেপি)- মধ্যপ্রদেশ

মন্ত্রী হচ্ছেন BJP-র তেলঙ্গানা সভাপতি জি কিষাণ রেড্ডি। এক্স হ্যান্ডেলে পোস্ট করে ক্যাবিনেট সদস্য হিসেবে তাঁকে বেছে নেওয়ায় নরেন্দ্র মোদীকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

শপথ অনুষ্ঠান শেষে ক্যাবিনেট সদস্যদের নিজের বাসভবনে ডিনারে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন জেপি নাড্ডা।
নরেন্দ্র মোদীর শপথ অনুষ্ঠানে যোগ দিতে দিল্লিতে অভিনেতা রজনিকান্ত।

শপথ নেওয়ার আগে প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে চা-চক্রে বেশ কিছু জয়ী সাংসদকে ডেকে পাঠান নরেন্দ্র মোদী। রাজনাথ সিংহ, অমিত শাহ, নির্মলা সীতারমন, পীযূষ গোয়েল, এস জয়শংকর ছাড়াও ছিলেন এইচডি কুমারস্বামী, চিরাগ পাসওয়ান। বাংলা থেকে ছিলেন শান্তনু ঠাকুর।

প্রধানমন্ত্রী হিসাবে নরেন্দ্র মোদীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ করা হয়েছে সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্পের শ্রমিকদের। বন্দে ভারত তৈরির কারিগররাও উপস্থিত থাকবেন। পাশাপাশি উত্তরাখণ্ড টানেল বিপর্যয়ে রক্ষা পাওয়া শ্রমিকদের আমন্ত্রণ করা হয়েছে। ওই সু়ডঙ্গ থেকে আটকে পড়া শ্রমিকদের যারা উদ্ধার করে আনা ব়্যাট মাইনররাও থাকবেন রাষ্ট্রপতি ভবনে।

শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, ভুটান, নেপাল, মরিশাসসহ বিভিন্ন দেশের শীর্ষ নেতারা যোগ দেবেন। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, মলদ্বীপের রাষ্ট্রপ্রধান মুইজ্জু, ভুটানের প্রধানমন্ত্রী শেরিং তোপগে ইতিমধ্যেই ভারতে পা রেখেছেন।

রাষ্ট্রপতি ভবনে সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটে টানা তৃতীয়বারের জন্য প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেবেন নরেন্দ্র মোদী। একইসঙ্গে তাঁর ক্যাবিনেট সদস্যদেরও শপথবাক্য পাঠ করাবেন রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মু। অনুষ্ঠান চলবে রাত ৮টা পর্যন্ত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here