সৃজিতা শীল বারাণসী

লক্ষ্য হ্যাটট্রিক। আর তাই  মঙ্গলবার বারাণসী কেন্দ্র থেকে মনোনয়ন জমা করলেন নরেন্দ্র মোদী। ঠিক সকাল ১১টা ৪০ মিনিট নাগাদ মনোনয়ন জমা দিলেন তিনি। উত্তর প্রদেশের এই হেভিওয়েট কেন্দ্র থেকে বিপুল ভোটে জয় নিয়ে আত্মবিশ্বাসী নমো। তৃতীয়বারের জন্য তাঁর প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসা নিয়েও কার্যত নিশ্চিত গেরুয়া শিবির।

এদিন সকাল সকাল গঙ্গা স্নান করে কাশী বিশ্বনাথ-সহ বারাণসীর বিভিন্ন মন্দিরে পুজো দেওয়ার পর মনোনয়ন পেশের জন্য বেরিয়ে পড়েছেন তিনি। কাশী শহরের অভিভাবক বলে পরিচিত কালভৈরভ মন্দিরে মাথা ঠেকিয়ে শুরু করেন মন্দির যাত্রা।

মঙ্গলবার মন্দির পরিক্রমার কারণ মনোনয়ন পেশের আগে ভগবানের আশীর্বাদ নেওয়া। সোমবার সন্ধ্যায় তিনি তাঁর সংসদীয় কেন্দ্রের মানুষদের শুভেচ্ছা, আর্শীর্বাদ গ্রহণ করেছেন ছয় ঘণ্টার রোড-শো’য়ে। ছয় কিলোমিটার দীর্ঘ রোড-শো’য়ে লক্ষণীয় ছিল এই আধ্যাত্মিক শহরটির সংখ্যালঘু সমাজ, বিশেষ করে মুসলিমদের উপস্থিতি। শহরের সবচেয়ে বড় মুসলিম মহল্লায় মোদীর উপর পুষ্পবৃষ্টি বর্ষিত হয়। সেই মতো আগাম ব্যবস্থা রেখেছিল বারাণসী বিজেপি।

ক’দিন ধরেই প্রধানমন্ত্রী ভাষণে মুসলিমদের টার্গেট করেছেন। গত রবিরার বাংলায় প্রচারে এসেও হিন্দু-মুসলিম বিভাজনের তাস খেলেছেন। নিশানা করেছেন মুসলিমদের। কিন্তু নিজের নির্বাচনী কেন্দ্রের রোড-শো’য়ের রুটে ‘সবকা সাথ’ বার্তা দিতে ভোলেননি। মুসলিম মহল্লাতেও শহরের বাকি এলাকার মতো চোখে পড়ার মতো ভিড় লক্ষ্য করা গিয়েছে। শোনা গিয়েছে ‘মোদী’ মোদী স্লোগান। সোমবার বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত চলে প্রধানমন্ত্রীর রোড শো। সঙ্গে ছিলেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর মনোনয়ন পেশকে দিনের সেরা ইভেন্ট করে তুলতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে বিজেপি। বারাণসীর আকাশে উড়বে হাজারের বেশি ড্রোন। না, এগুলি সব নিরাপত্তা বাহিনীর নয়। হাজার ড্রোন ওড়াবে বিজেপি। প্রধানমন্ত্রীর মনোনয়ন পেশ ঘিরে জনতার ভিড়ের দৃশ্য ধরে রাখবে ড্রোন, যা গোটা গেশে প্রচার করবে দল। এমনীতেই গত দিন সাতেক হল প্রতি সন্ধ্যায় দ্বশাশ্বমেধ ঘাটে সন্ধ্যা আরতির পর ড্রোন ওড়ানো হচ্ছে। সেগুলির নিচে লাগানো ছোট পর্দায় ভেসে উঠছে মোদীর হাত ধরে বদলে যাওয়া বারাণসীর ছবি। মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর রোড-শো’য়ের ছবি আশপাশের অম্তত গোটা কুড়ি লোকসভা আসনে সরাসরি সম্প্রচার করা হবে বিগ স্ক্রিনে। প্রধানমন্ত্রীর বারাণসীতে প্রার্থী হওয়ার পর থেকে কম করে গোটা কুড়ি আসনে বিজেপি শক্ত অবস্থায় থাকে।

মনোনয়ন জমা করার আগের রাতে অর্থাৎ সোমবার নিজের কেন্দ্রে জমজমাট রোড শো করেন তিনি। আগামী ১ জুন বারাণসীতে রয়েছে ভোটগ্রহণ। মনোনয়ন জমা করার আগে নিজের এক্স হ্যান্ডেলে একটি ভিডিয়ো পোস্ট করেন নরেন্দ্র মোদী। যেটি আসলে বারাণসী কেন্দ্রে তাঁর রিপোর্ট কার্ড। ২০১৪ সালে এই কেন্দ্র থেকে প্রথম সাংসদ নির্বাচিত হয়ে প্রধানমন্ত্রীর কুর্সিতে বসেছিলেন নমো। সেই সময় থেকে এখনও পর্যন্ত বারাণসীর উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরা হয়েছে এই ভিডিয়োতে।

ক্যাপশনে মোদী লিখেছেন, ‘কাশীর সঙ্গে আমার সম্পর্ক অভূতপূর্ব। এই সম্পর্ক কখনও ছিন্ন হবে না। এর কোনও তুলনাও চলে না। ভাষায় ব্যক্ত করা যাবে না কাশী নিয়ে আমার আবেগ, অনুভূতি।’

মনোনয়ন জমা করার সময় নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে ছিলেন একাধিক BJP শাসিত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী, BJP শীর্ষ নেতারা। তালিকায় রয়েছেন, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং, লোকদলের সভাপতি জয়ন্ত চৌধুরী, আপনা দলের সভাপতি অনুপ্রিয়া প্যাটেল, LJP প্রধান চিরাগ পাসওয়ান এবং সুহেলদেব ভারতীয় সমাজ পার্টির সভাপতি ওমপ্রকাশ রাজভর। থাকবেন উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ।

উপস্থিত থাকবেন উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী পুস্কর সিং ধামি, বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতীশ কুমার, মধ্য প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী মোহন যাদব, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী একনাথ শিন্ডে, ছত্তিশগড়ের মুখ্যমন্ত্রী বিষ্ণু দেও সাঁই, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী ভজনলাল শর্মা, হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী নয়াব সিং সাইনি, গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাওয়ান্ত, অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা, ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক সাহা এবং সিকিমের মুখ্যমন্ত্রী প্রেম সিং তামাং।

বারাণসী কার্যত সেজে উঠেছে মোদীর এই মনোনয়ন কর্মসূচি ঘিরে। রাস্তায় যানজটের সম্ভাবনা থাকার আশঙ্কা করা হচ্ছে। বিমানবন্দরে পৌঁছতে সমস্যায় পড়তে পারেন যাত্রীরা। আর সে কারণেই উড়ান ধরতে হাতে বেশ কিছুটা সময় নিয়ে বেরিয়ে পড়ার পরামর্শ ভিস্তারাএয়ারলাইন্সের।

একটি সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট করে এই উড়ান সংস্থার পক্ষ থেকে বলা হয়, ১৪ মে রাস্তায় যানজটে এবং গাড়ির গতি স্লথ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বিমানবন্দরে পৌঁছনোর জন্য হাতে বাড়তি সময় নিয়ে পথে বেরোন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here