সৃজিতা শীল, কলকাতা

সোমবার বড়দিন। তার আগেই রং বেরঙের বাহারি আলোতে সেজে উঠেছে পার্ক স্ট্রিট এবং শহরের বিভিন্ন প্রান্ত। এবার বড়দিনে কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হবে পার্ক স্ট্রিটকে। মোতায়েন থাকবে ৩৫০০ পুলিশ।

শহরের বিভিন্ন প্রান্তে থাকবে ২৩টি নাকা চেক পয়েন্ট। প্রয়োজনে সেদিন পার্ক স্ট্রিটকে ‘ওয়াকিং স্ট্রিটও’ করে দেওয়া হতে পারে। এছাড়াও কলকাতার গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে মোতায়েন করা থাকবে অতিরিক্ত পুলিশ। দেখুন ভিডিও

লালবাজার সূত্রের খবর, বড়দিনে নজরদারির ক্ষেত্রে আরও আঁটসাঁট করার জন্য পার্ক স্ট্রিট এবং সংলগ্ন এলাকাকে মোট ৯টি সেক্টরের ভাগ করা হচ্ছে।

২৫ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় বিকেলের পর পার্ক স্ট্রিটে মানুষের ঢল নামলে, প্রয়োজনে কয়েক ঘণ্টার জন্য ওই রাস্তাটি ‘ওয়াকিং স্ট্রিট’ করে দেওয়া হতে পারে বলে পুলিশ সূত্রে খবর। নিরাপত্তায় তৈরি রাখা হচ্ছে পিসিআর ভ্যান, হেভি রেডিও ফ্লাইং স্কোয়াড, রিভার প্যাট্রোলিং এবং বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীকেও। শহরের ২৩টি নাকা চেক পয়েন্টও করা হবে।

তা ছাড়া নিউ মার্কেট, আলিপুর চিড়িয়াখানা, সায়েন্স সিটি-সহ কলকাতার গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে অতিরিক্ত পুলিশকর্মী মোতায়েন করা হবে। পুলিশ সূত্রে খবর, প্রতিটি সেক্টরে একজন করে ডেপুটি কমিশনার পদমর্যাদার অফিসার দায়িত্বে থাকবেন। তা ছাড়া ২৫ জন অ্যাসিস্ট্যান্ট কমিশনার পদমর্যাদা অফিসার টহলদারি দেবেন বলে জানা যাচ্ছে।

লালবাজার সূত্রে খবর, এবার ২৪ ডিসেম্বর রবিবার হওয়ার কারণে সকাল থেকেই শহরের দর্শনীয় স্থান থাকবে জমজমাট। বিকেল গড়াতেই পার্ক স্ট্রিট, নিউ মার্কেট, ক্যাথিড্রল চার্চ-সহ শহরের অন্যান্য চার্চে ভিড় বাড়তে থাকবে। তাই ওই দিন নিরাপত্তার জন্য মোতায়েন করা হবে প্রায় ২৩০০ পুলিশ কর্মী। প্রতিবারের মতো এবারও তৈরি হয়েছে ওয়াচ টাওয়ার।

২৪ ডিসেম্বর ৩ জন ডিসি, ১০ জন এসি, ৫০ জন ইন্সপেক্টর, ২৩৯ জন সাব ইন্সপেক্টর বা সার্জেন্ট, ৩০০ জন এএসআই, ১৪৭২ জন হোমগার্ড, প্রায় ২০০ জন মহিলা পুলিশ সব মিলিয়ে ২৪ ডিসেম্বর অর্থাৎ ক্রিসমাস ইভ প্রায় ২৩০০ পুলিশ কর্মী শহরের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকছেন।

একই ভাবে ২৫ তারিখ বড়দিনের দিন সেই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াবে ৩২০০ জন। অর্থাৎ পার্কস্ট্রিটে যেমন জোন করে নিরাপত্তার বেষ্টনি তৈরি হচ্ছে। তেমন চার্চ, কালী ঘাটের মন্দির, চিড়িয়াখানা, ভিক্টোরিয়ার মতও জায়গাগুলোতেও থাকছে নিরাপত্তা।

২৫ ডিসেম্বর ৯জন ডিসি, ২৫ জন এসি, ৭৫ জন ইন্সপেক্টর, ৩০৪ জন সাব ইন্সপেক্টর বা সার্জেন্ট, ৪০৯ জন এএসআই, ২০৬৪ জন হোমগার্ড ও ৩০০জন মহিলা পুলিশ।

এছাড়া গঙ্গার ঘাটগুলোতেও নিরাপত্তা বাড়ানো হবে। প্রিন্সেপ ঘাট, মিলেনিয়াম পার্ক-সহ সংলগ্ন এলাকায় নজরদারি থাকবে পুলিশের। রিভার পেট্রলিং, ডিএমজি টিম থাকবে। এছাড়া ক্যুইক রেসপন্স টিম, এইচআরএফএস থাকবে পর্যাপ্ত পরিমাণে। শহরের বিভিন্ন প্রান্তে মোট ৮টি অ্যাম্বুলান্স প্রস্তুত থাকবে। ডিভিশন থানাগুলোতেও থাকবে বাড়তি তৎপরতা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here