হিনা রায় কলকাতা

২-৩ ঘণ্টার মধ্যে ল্যান্ডফল প্রক্রিয়া শুরু। বাংলার আকাশে ঘূর্ণিঝড়ের মেঘপুঞ্জ। রেমালের কেন্দ্র সাগরদ্বীপ থেকে ১২৫ কিমি দূরে। ক্যানিং থেকে ১৩৫ কিমি দূরে।

১০০ কিলোমিটার ছাড়াবে ঝড়ের গতি! রাতে কোন জেলায় কত বেগে হাওয়া, পূর্বাভাস দিল আলিপুর

দেশের সময় এখনও সাগরদ্বীপ থেকে ১২৫ কিলোমিটার দূরে রীতিমত ফুঁসছে ‘রেমাল’। হিসেব মত আজ মধ্যরাতে সে আছড়ে পড়বে বাংলাদেশের মংলার দক্ষিণ পশ্চিমে। তার প্রভাবেই ক্রমশ উত্তাল হতে শুরু করেছে বঙ্গোপসাগর উপকূল। কলকাতায় রেমালের প্রভাবে বিকেল থেকেই দমকা ঝোড়ো হাওয়া শুরু হয়েছে। বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি শুরু হয়েছে বিভিন্ন জায়গায়।

ঘন কালো মেঘে ঢেকে গিয়েছে আকাশ। ঘন ঘন বইছে ঝোড়ো হাওয়া। সঙ্গে ঝিরঝিরে বৃষ্টি। বিকেল নামার সঙ্গে সঙ্গেই প্রহর গুনতে শুরু করেছে কলকাতা। 
এখনও সাগরদ্বীপ থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূরে রীতিমত ফুঁসছে ‘রেমাল’। হিসেব মত আজ মধ্যরাতে সে আছড়ে পড়বে বাংলাদেশের মংলার দক্ষিণ পশ্চিমে। তার প্রভাবেই ক্রমশ উত্তাল হতে শুরু করেছে বঙ্গোপসাগর উপকূল। বাংলাদেশ সরকারের তরফে চূড়ান্ত সতর্কতা জারি হয়েছে পায়রা, মংলা, চট্টগ্রাম-সহ একাধিক বন্দরে। ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের বাগেরহাটের কাছে কুয়াকাটায় জোয়ারের জল বেড়ে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে এক যুবকের। মৃতের নাম মহম্মদ শরিফুল ইসলাম। খবর পেয়ে রওনা দেয় স্থানীয় মহিপুর থানার পুলিশের একটি দল। 

এখনও সাগরদ্বীপ থেকে ১২৫ কিলোমিটার দূরে । ক্যানিং থেকে ১৩৫ কিমি দূরে।রীতিমত ফুঁসছে ‘রেমাল’। হিসেব মত আজ মধ্যরাতে সে আছড়ে পড়বে বাংলাদেশের মংলার দক্ষিণ পশ্চিমে। তার প্রভাবেই ক্রমশ উত্তাল হতে শুরু করেছে বঙ্গোপসাগর উপকূল।

রেমাল এফেক্ট শুরু
রেমাল এফেক্ট শুরু। যশোর রোড নাগেরবাজারগামী লেনে দমদম মল রোডের কাছে ভেঙে পড়ে একটি গাছ। গাছের ভাঙা অংশ গিয়ে পড়ে একটি গাড়ির উপরে। গাড়িটির ক্ষতি হওয়ার পাশাপাশি আধ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায় যশোর রোডে নাগেরবাজারগামী লেনে। গাছ পড়ার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে নাগেরবাজার ট্রাফিক গার্ডের পুলিশ কর্মীরা ও দক্ষিণ দমদম পুরসভার কর্মীরা। গাছ কেটে তা সরিয়ে নিয়ে যান চলাচল স্বাভাবিক করেন তাঁরা।

টাস্ক ফোর্স রাজভবনের
রাজভবন টাস্ক ফোর্স গঠন করেছে। কন্ট্রোল রুম খুলেছে। রাজ্যপাল-সহ সিনিয়র আধিকারিকদের সারা রাত পাওয়া যাবে। সাধারণের জন্য রাজভবন খোলা থাকবে। চিফ মেডিক্যাল অফিসার থাকছেন এবং দুটি অ্যাম্বুলেন্স রেডি থাকছে।

প্রস্তুত মেডিক্যাল টিম
পূর্ব রেলের তরফে বিআর সিং হাসপাতালে স্পেশাল মেডিকেল টিমের ব্যবস্থা করা হল। স্টেশন এবং স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় সাধারণ মানুষরা জখম হলে সেখানে এই টিম পৌঁছবে।

রবিবার বিকেলে একটি সাংবাদিক বৈঠকে আলিপুর আবহাওয়া দফতরের উপ অধিকর্তা সোমনাথ দত্ত জানান, উত্তর এবং দক্ষিণ ২৪ পরগনায় রবিবার রাতে ঝড়ের গতিবেগ পৌঁছতে পারে ১০০-১১০ কিলোমিটার পর্যন্ত। অন্য দিকে, কলকাতা, হাওড়া, হুগলি এবং পূর্ব মেদিনীপুরে ঝড়ের গতি থাকবে ৭০ থেকে ৮০ কিলোমিটার। তবে তা বেড়ে ৯০ কিলেমিটারও হতে পারে বলে সতর্ক করেছে হাওয়া অফিস। নদিয়া এবং পূর্ব বর্ধমানে ঝড়ের গতি ৬০-৭০ কিলোমিটার পর্যন্ত থাকতে পারে বলে সতর্ক করেছে হাওয়া অফিস। তবে এই গতি বেড়ে ৮০ কিলেমিটারও হতে পারে। এ ছাড়া দক্ষিণের বাকি জেলা গুলিতেও ৫০-৬০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে বলে সতর্ক করেছে আবহাওয়া দফতর।

বাংলাদেশ সরকারের তরফে চূড়ান্ত সতর্কতা জারি হয়েছে পায়রা, মংলা, চট্টগ্রাম-সহ একাধিক বন্দরে। ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের বাগেরহাটের কাছে কুয়াকাটায় জোয়ারের জল বেড়ে গিয়ে মৃত্যু হয়েছে এক যুবকের। মৃতের নাম মহম্মদ শরিফুল ইসলাম। খবর পেয়ে রওনা দেয় স্থানীয় মহিপুর থানার পুলিশের একটি দল। 

এদিকে কলকাতায় রেমালের প্রভাবে বিকেল থেকেই দমকা ঝোড়ো হাওয়া শুরু হয়েছে। বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি শুরু হয়েছে বিভিন্ন জায়গায়। কোমর বেঁধে তৈরি হচ্ছে পুরসভা। আজ রাত থেকেই তুমুল বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে কলকাতায়। নয়াদিল্লির মৌসম ভবন জানিয়েছে, আজ রাত সাড়ে এগারোটা নাগাদ ‘ল্যান্ডফল’ শুরু হবে রেমালের। তার দাপটে উত্তাল হয়ে উঠবে আবহাওয়া।

ভারি থেকে অতিভারি বৃষ্টি হবে দক্ষিণ গাঙ্গেয়বঙ্গের দুই মেদিনীপুর, দুই চব্বিশ পরগণা, হাওড়া, হুগলি ও কলকাতায়। রাত এগারোটা থেকে ঝড়ের গতিবেগ বেড়ে ঘন্টায় ১০০ থেকে ১১০ কিলোমিটারে গিয়ে দাঁড়াবে। সর্বোচ্চ হাওয়ার ধাক্কা (গাস্ট) পৌঁছতে পারে ১২০ কিলোমিটারে। উপকূলে এক থেকে তিন মিটার অবধি জলোচ্ছ্বাসের সতর্কতা জারি রেখেছে আবহাওয়া দফতর। বাংলাদেশের ১৫ জেলায় জলোচ্ছ্বাসের সতর্কতা জারি করেছে সেদেশের আবহাওয়া অধিদফতর। খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, ফেনি, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার জুড়ে চূড়ান্ত সতর্কতা জারি রয়েছে। 

মধ্যরাতের দিকে দুই চব্বিশ পরগণা, পূর্ব মেদিনীপুর ও কলকাতায় অতিভারি বৃষ্টি হতে পারে। ফলে এখন থেকেই কলকাতার নিচু এলাকায়, যেখানে জল জমার সমস্যা আছে, সেখানকার বাসিন্দারা চিন্তায়। এদিকে সপ্তাহান্তের দিন, রবিবার বলে এমনিতেই গাড়িঘোড়া কম। যাদের আজ কাজের দিন, তাঁদের কাছে বাড়ি ফেরার চিন্তাটা এখন বড় হয়ে দাঁড়িয়েছে ।

 বকখালিতে ছবিগুলি তুলেছেন দেবাশিস রায়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here