Goutam Ghose’s Newest Film Screened At Pune International Film Festival

0
158
HIYA ROY : DESHER SAMAY

Raahgir – The Wayfarers
Goutam Ghose’s film
starring Adil Hussain, Tillotama Shome, Neeraj Kabi and Omkardas Manikpuri was screened at Pune International Film Festival.

is an emotional portrayal of encounters between poverty-stricken strangers that, in order to find new economic opportunities, have to traverse the vast country of India by foot. The film tells a tale of human empathy in times of crisis and revolves around three characters and the relationship they make with each other through a journey in search of their livelihoods. The film was extensively shot in Ranchi and Netarhat.

On this occasion, the director said, “The movie deals with a story of India’s impoverished people who live in the forests and can hardly make ends meet. They have limited dreams and desires. Their biggest concern is trying to gather the day’s food. The film celebrates the fact that despite the daily struggle for survival, the elements of humanity are still alive in these people. The film showcases how Indian reality differs in the cities and in a poor tribal village. It’s a beautiful story of humanity that is still alive among the poorest of the poor. It is a celebration of empathy, humanity despite a struggle for survival.”

was earlier screened at several film festivals – including Busan International Film Festival, MAMI – Mumbai Film Festival, Shanghai International Film Festival, CinemAsia Film Festival (Amsterdam), KIFF – Kolkata International Film Festival, IFFK – International Film Festival of Kerala.

‘এম এস ধোনি – দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ বা কঙ্গনা রানাউত অভিনীত ‘সিমরান’ যিনি প্রযোজনা করেছেন, সেই প্রযোজক অমিত আগরওয়াল, আদর্শ টেলিমিডিয়া ব্যানারের অধীনে তাঁর নবতম প্রযোজনা Raahgir- The Wayfarers নিয়ে এসেছেন জাতীয় পুরস্কার বিজয়ী চলচ্চিত্র নির্মাতা গৌতম ঘোষের মাধ্যমে। ছবিতে অভিনয় করেছেন আদিল হুসেন, তিলোত্তমা সোম, নীরজ কবি, ওমকারদাস মানিকপুরী। আজ পুনে ইন্টারন্যাশনাল ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে ছবিটির প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়।

রাহগির – দ্য ওয়েফারার্স হল দারিদ্র্য-পীড়িত অপরিচিতদের মধ্যে সাক্ষাতের একটি আবেগমথিত চিত্র, যার সমাধানে নতুন অর্থনৈতিক সুযোগ খুঁজতে, পায়ে হেঁটে ভারতবর্ষের মত বিশাল দেশ পাড়ি দিতে হয়। চলচ্চিত্রটি সঙ্কটের সময়ে মানুষের সহানুভূতির একটি গল্প বলে। ৩টি চরিত্র এবং তাদের জীবিকার সন্ধানে যাত্রার মাধ্যমে একে অপরের সাথে যে সম্পর্ক তৈরি করে তার চারপাশে গল্পটি আবর্তিত হয়। রাহগির – দ্য ওয়েফারার্স ঝাড়খণ্ড রাজ্যে চিত্রায়িত হয়েছে। রাঁচি ও নেতারহাটে ছবিটির বেশিরভাগ শুটিং হয়েছে।

মিডিয়ার সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে, রাহগির – দ্য ওয়েফারার্স- এর প্রযোজক অমিত আগরওয়াল বলেছেন, “পুনে আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে এমন অভূতপূর্ব প্রতিক্রিয়ায় আমরা খুশি। আমি মনে করি এই উৎসবগুলো চলচ্চিত্র নির্মাতা ও চলচ্চিত্রপ্রেমীদের জন্য একটি বড় উন্মুক্ত স্থান প্রদান করে। দর্শকরা শুধু ‘রাহগির’ উপভোগই করেননি, তারা ছবিটি সম্পর্কিত প্রাসঙ্গিক প্রশ্নও করেছিলেন, যা স্পষ্ট করে যে ছবিটির সঙ্গে তাদের একাত্মবোধ জড়িয়ে গিয়েছিল গোটা ছবিটি জুড়ে। ভারতে প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির আগে আমরা ছবিটিকে বিভিন্ন চলচ্চিত্র উৎসবে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছি।”

এই উপলক্ষে, রাহগির – দ্য ওয়েফারার্স- এর পরিচালক গৌতম ঘোষ বলেন, “মুভিটি ভারতের দরিদ্র মানুষের গল্প নিয়ে কাজ করেছে যারা বনে বাস করে এবং খুব কম চাহিদার মধ্যে নিজেদের বেঁধে রাখে। তাদের সীমিত স্বপ্ন এবং ইচ্ছা আছে। তাদের সবচেয়ে বড় উদ্বেগ হল দিনের খাবার জোগাড় করার চেষ্টা করা। চলচ্চিত্রটি এই সত্যটিকে উদযাপন করে, যে বেঁচে থাকার জন্য প্রতিদিনের লড়াই সত্ত্বেও, মানবতার উপাদানগুলি এখনও এই লোকেদের মধ্যে বেঁচে আছে। শহর এবং একটি দরিদ্র উপজাতীয় গ্রামে ভারতীয় বাস্তবতা কীভাবে আলাদা তা চলচ্চিত্রটি দেখায়। এটি মানবতার একটি সুন্দর গল্প যা এখনও দরিদ্রতম দরিদ্রদের মধ্যে বেঁচে আছে। বেঁচে থাকার লড়াই সত্ত্বেও এটি সহানুভূতি এবং মানবতার উদযাপন।”

‘রাহগির: দ্য ওয়েফারার্স’ এর আগে বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয়েছিল – যার মধ্যে রয়েছে বুসান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, মামি – মুম্বাই চলচ্চিত্র উৎসব, সাংহাই আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, সিনেমাএশিয়া চলচ্চিত্র উৎসব (আমস্টারডাম), KIFF – কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, IFFK – আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব কেরালা।

Previous articleMamata Banerjee: বর্ধমান থেকে ফেরার পথে মাথায় হাল্কা আঘাত পেলেন মমতা
Next articleKolkata Book fair 2024: মধু কবির দুশ বছর পূর্তিতে নেই কোনো স্মারক বই মেলায়, ব্যথিত সাহিত্য প্রেমী ও মাইকেল অনুরাগীরা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here