বিমান হাইজ্যাক করে নিয়ে যাওয়া হবে পাকিস্তানে, হুমকি দিয়ে ফোন এল এয়ার ইন্ডিয়ার কাছে, বিমানবন্দরে জারি হাই অ্যালার্ট

0
948

দেশের সময় ওয়েবডেস্কঃ পুলওয়ামা কাণ্ডের পর দেশজুড়ে বিদ্রোহের আগুন। ভারত-পাকিস্তান দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক প্রায় তলানিতে ঠেকেছে দুই দেশই আক্রমণ শানাচ্ছে একে অপরের দিকে। এমন পরিস্থিতিতে শনিবার হুমকি ফোন এল এয়ার ইন্ডিয়ার মুম্বই কন্ট্রোলে। সূত্রের খবর, ফোনের ও পার থেকে বার্তা দেওয়া হয়েছে আজই এয়ার ইন্ডিয়ার বিমান হাইজ্যাক করে নিয়ে যাওয়া হবে পাকিস্তানে। নিরাপত্তা জোরদার হয়েছে বিমানবন্দরে।

ব্যুরো অব সিভিল অ্যাভিয়েশন সিকিউরিটি (BCAS) সূত্রে খবর, শনিবার মুম্বইয়ের এয়ারপোর্ট অপারেশন কন্ট্রোল সেন্টারে একটি উড়ো ফোন আসে। ও-পারের কণ্ঠ জানায়, এয়ার ইন্ডিয়ার বিমান ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা রয়েছে জঙ্গিদের। সেই ছিনতাই হতে পারে ২৩ ফেব্রুয়ারি অর্থাৎ আজই। বিমান হাইজ্যাক করে নিয়ে যাওয়া হবে পাকিস্তানে।

কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সূত্রে খবর, ১৯৯৯ সালে যে ভাবে কাঠমান্ডুু থেকে দিল্লিগামী ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের বিমান অপহরণ করে কন্দহরে নিয়ে গিয়েছিল হরকত-উল-মুজাহিদিন জঙ্গিরা, এ বার সেই একই কায়দায় বিমান ছিনতাইয়ের ছক কষতে পারে জঙ্গিরা। কাঠমান্ডু থেকে দিল্লিগামী আইসি-৮১৪ বিমানটি ছিনতাই করে অমৃতসর-লাহৌর-দুবাই হয়ে শেষ পর্যন্ত তালিবান শাসিত আফগানিস্তানের কন্দহরে নামায় পাক মদতপুষ্ট জঙ্গিরা। সে ক্ষেত্রেও ছিনতাইকারীরা যাত্রী সেজে কাঠমান্ডুু বিমানবন্দর থেকে বিমানে ওঠে। সাত দিন দর কষাকষির পরে ভারতীয় জেলে বন্দি মৌলানা মাসুদ আজাহার-সহ তিন জঙ্গির মুক্তির বিনিময়ে ছাড়া পান বিমানের ১৯০ জন যাত্রী। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য কন্দহর কাণ্ডে জড়িত ছিল জইশ সংগঠনের মাথা মৌলানা মাসুদ আজহার। এ বারও পুলওয়ামায় আত্মঘাতী হামলার মূল চক্রী সে। তাই কোনও সম্ভাবনাই উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না।
বিমান ছিনতাইয়ের হুমকির খবর পাওয়া মাত্রই জরুরি বৈঠকে বসেন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা বাহিনী ও বিমান মন্ত্রকের কর্তারা। গোটা বিমানবন্দরকে কার্যত নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে। প্রত্যেক বিমান ওঠানামায় কড়া নজর রাখা হচ্ছে। টার্মিনালের মুখে রয়েছে কড়া নিরাপত্তা। বিমানবন্দরে প্রত্যেক যাত্রীকে পুঙ্খানুপুঙ্খ তল্লাশি চালাচ্ছে সিআইএসএফ। সিসিটিভি, ক্যামেরা ফুটেজের পাশাপাশি নিরাপত্তারক্ষীদের সতর্ক থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
জঙ্গিদের যাত্রী সেজে বিমানে ওঠার সতর্কতার কথা মাথায় রেখে বেড়েছে যাত্রীদের তল্লাশিও। নিয়মমাফিক তল্লাশির পর বিমানে ওঠার সময়ও এক প্রস্ত তল্লাশির নির্দেশ দিয়েছে বিমান মন্ত্রক। যাত্রীদের ‘স্ক্রিনিং’ করা ব্যাগ বিমানে ওঠানোর আগে তল্লাশি করতে বলা হয়েছে বিমানকর্মীদের। প্রয়োজনে মার্শালের সংখ্যা বাড়ানোর পরামর্শও দেওয়া হয়েছে। কোনও যাত্রীর আচরণ সন্দেহজনক হলে তা পাইলটকে জানাতে বলা হয়েছে।
কয়েকদিন আগেই পুলওয়ামায় পাক জঙ্গিগোষ্ঠী হামলা করে। প্রাণ হারান ৪৯ জন জওয়ান। তারপর থেকেই ভারতে সমস্ত ক্ষেত্রে জঙ্গি হামলা নিয়ে সজাগ থাকছে প্রশাসন। ‌‌

Previous articleবেঙ্গালুরুরতে আগুনে পুড়ে ছাই ৩০০ গাড়ি
Next articleপাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে চ্যালেঞ্জ মোদীর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here