সম্পাদকীয়- জয়নগরে প্রকাশ্য শ্যুট আউটের ঘটনা চাপা পড়তে না পড়তেই,আবার দমদমের গেরাবাজার সংলগ্ন এলাকায় শ্যুট আউটের ঘটনা ঘটল।প্রকাশ্য এই শ্যুট আউটের পাশাপাশি রাজ্য জুড়ে নানা জায়গায় হানাহানির খবর পাওয়া যাচ্ছে।মাত্র কয়েক দিন আগে যে ভাবে কলকাতারই ট্যাংড়া এলাকায় দিনে-দুপুরে এক যুবককে খোলা মাঠের মধ্যে সকলের সামনে একদল দুষ্কৃতী কুপিয়ে হত্যা করেছে,সে খবর জেনে আমাদের অবাক হয়ে ভাবতেই হয়,তবে কী এ রাজ্যে আইন কানুন বলে আর কিছু অবশিষ্ট নেই!কেন বার বার এই প্রকাশ্য খুন আর হানাহানির ঘটনা ঘটে যাবে?ন্যাশনাল ক্রাইম ব্যুরোর রিপোর্টও বলছে এ রাজ্যে মহিলাদের উপর নির্যাতন ও ধর্ষণের ঘটনা বাড়ছে।তাহলে আমরা কী ভাবে এ রাজ্য নিয়ে, তার এগিয়ে চলা নিয়ে,উন্নয়ন নিয়ে গর্বিত হব?মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী নিজেই যেখানে দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার একজায়গায় প্রশাসনিক বৈঠক থেকে পুলিশকে শতর্ক করতে বলেন যে সেখানে বোমা বানানো একটা কুটির শিল্প হয়ে উঠেছে।তখন তো বুঝতে অসুবিধা হয় না যে প্রশাসিক প্রধান পর্যন্ত রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা নিয়ে যথেষ্ট চিন্তিত।রাজ্য জুড়ে যে হিংসার চালচিত্র তাকে দমন করতে একমাত্র দরকার কড়া হাতে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া।পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকাই এখানে মুখ্য।মুখ্যমন্ত্রী বার বার বলেছেন কোন অন্যায় ও বেআইনি কার্যকলাপকে বরদাস্ত করা হবে না।অবৈধ বালি খাদান,ইটভাটা,চাল-সব্জির ফোঁড়ে সবার বিরুদ্ধে বার বার মুখ্যমন্ত্রী হুশিয়ারি দেওয়ার পরেও কেন পুলিশ প্রশাসন সমস্ত রকম বেআইনি কার্যকলাপ করে যারা তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে সমর্থ হচ্ছে না?এই প্রশ্নটা আমাদের ভাবাচ্ছে,ভাবাচ্ছে কারণ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রাজ্যকে এগিয়ে নিয়ে যেতে যে প্রয়াস করে চলেছেন,সেই প্রয়াস কালিমালিপ্ত হচ্ছে রাজ্য জুড়ে আইন বিরুদ্ধ কার্যকলাপ ধারাবাহিক ভাবে ঘটে চলায়।আমাদের ভাবতেই হচ্ছে তাহলে কী প্রশাসনের অন্দরমোহলেই কোথাও এমন কেউ ঘাপটি মেরে বসে রয়েছে যে আসলে মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যের বদনাম করতে বদ্ধপরিকর।প্রশাসনের অন্দরেই কোন কনসপিরেন্সি চলছে না তো!বলাই বাহুল্য এর উত্তরও প্রশাসনিক প্রধান হিসেবে মুখ্যমন্ত্রীকেই খুঁজে বার করতে হবে,এবং সেই মত ব্যবস্থাও তাঁকেই নিতে হবে।তা না হলে মানুষের কাছে এই বার্তা যাবে যে,মুখ্যমন্ত্রী মুখে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার কথা বললেও আসলে সেই আইন ভাঙার খেলা খেলছেন তিনি নিজেই।কথা ও কাজের মধ্যে মিল রাখতে উদ্যোগী হতে হবে মুখ্যমন্ত্রীকেই।যে হেতু মুখ্যমন্ত্রীই এ রাজ্যের পুলিশ মন্ত্রী তাই আইনের শাসন না থাকার দায় তাঁর উপরই বর্তায়।আমরা তাই প্রত্যাশা করবো মুখ্যমন্ত্রী রাজ্য জুড়ে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে কড়া হাতে ব্যবস্থা নেবেন।পুলিশকে কোন রাজনৈতিক রঙ না দেখে কাজ করার নির্দেশ দেবেন।রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা ভেঙে পড়লে,অরাজক নেমে আসবে,উন্নয়নও থমকে দাঁড়াবে,তাই সর্বাগ্রে দরকার আইনের শাসন।আইনের শাসন ছাড়া গণতন্ত্র টেঁকে না,আর গণতন্ত্র না থাকলে নাগরিক জীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে।এ রাজ্যে সেই লক্ষণ দেখা দিচ্ছে,তাই সাবধান হওয়া জরুরি।

Previous articleমুখে ফাউন্ডেশন ফুটে থাকে? ১মিঃ সমস্যার সমাধান করুন!
Next articleকাঁপুনি কমলেও থাকবে শীতের আমেজ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here