আজ স্বামী বিবেকানন্দর জন্মদিন  এই উপলক্ষে ভার্চুয়াল মাধ্যমে বক্তৃতা দেন প্রধানমন্ত্রী। সকালেই ট্যুইটারে যুগনায়কের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

দেশের সময় ওয়েবডেস্কঃ আজ জাতীয় যুব দিবস। প্রতি বছর ১২ জানুয়ারি, যুব সমাজের সবচেয়ে বড় অনুপ্রেরণা স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন জাতীয় যুব দিবস হিসাবে পালিত হয়। ১৮৬৩  সালের ১২ জানুয়ারি কলকাতায় জন্মগ্রহণ করেন, স্বামী বিবেকানন্দ (মূল নাম – নরেন্দ্রনাথ দত্ত) বিশ্বের অন্যতম বিখ্যাত দার্শনিক এবং সন্ন্যাসী হিসেবে বিবেচিত হন। ১৯৮৪ সালে, ১২ জানুয়ারিকে ভারত সরকার জাতীয় যুব দিবস হিসাবে ঘোষণা করেছিল। এরপর ১৯৮৫ সাল থেকে প্রতি বছর ১২ জানুয়ারি জাতীয় যুব দিবস হিসেবে পালিত হচ্ছে। 

স্বামী বিবেকানন্দের বার্তা যুবকদের প্রতি
স্বামী বিবেকানন্দ, একজন সমাজ সংস্কারক এবং আধ্যাত্মিক গুরু যিনি দর্শন, ধর্ম, সাহিত্য, বেদ, পুরাণ এবং উপনিষদ সম্পর্কে খুব ভাল জ্ঞান রাখতেন, যুবকদের তাদের সম্ভাবনার সঠিক ব্যবহারের উপর খুব জোর দিতেন। 


বিবেকানন্দ যুবকদের একটি বার্তা দিয়েছিলেন যে তারা তাদের স্বাচ্ছন্দ্য অঞ্চল থেকে বেরিয়ে আসুন এবং এর জন্য প্রচেষ্টা করে তারা যা চান তা অর্জন করুন। 
২৫ তম জাতীয় যুব উৎসবের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী


২০২২ সালের জাতীয় যুব দিবস উপলক্ষে, ভারত সরকারের যুব বিষয়ক ও ক্রীড়া মন্ত্রকের দ্বারা আয়োজিত ২৫ তম জাতীয় যুব উৎসব  প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী উদ্বোধন করলেন। সেই সঙ্গে জাতির উদ্দেশে ভাষণও দেন প্রধানমন্ত্রী। ২৫ তম জাতীয় যুব উৎসবের থিম মন্ত্রক ঘোষণা করেছে ‘সক্ষম যুব – শক্তিশালী যুব’। এছাড়াও, জাতি গঠনের জন্য যুবকদের অনুপ্রাণিত, প্রজ্বলিত, ঐক্যবদ্ধ এবং উৎসাহিত করার জন্য ভারতের প্রতিটি জেলায় অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।
পুদুচেরিতে জাতীয় যুব উৎসবের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী

পুদুচেরিতে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে ২৫তম জাতীয় যুব উৎসবের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। উৎসবের লক্ষ্য হল ভারতের যুবকদের মন গঠন করা এবং তাদের জাতি গঠনের জন্য একটি ঐক্যবদ্ধ শক্তিতে রূপান্তরিত করা। অনুষ্ঠান চলাকালীন প্রধানমন্ত্রী ‘আমার স্বপ্নের ভারত’ এবং ‘ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের অজানা নায়কদের’ উপর নির্বাচিত প্রবন্ধের মোড়ক উন্মোচন করেন। দুটি বিষয়ে ১ লাখের বেশি তরুণ-তরুণীর জমা দেওয়া প্রবন্ধগুলো থেকে এসব রচনা বাছাই করা হয়েছিল। 

মোদী এদিন যা বললেন:
বুধবার ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পুদুচেরিতে ২৫তম যুব উৎসবের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। যুব উৎসবের উদ্বোধন করে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, ‘ভারতের দুটি অসীম শক্তি রয়েছে। একটি হল ডেমোগ্রাফি এবং অন্যটি ডেমোক্রেসি, যে দেশের যুবশক্তি যত বেশি, তার ক্ষমতা তত বেশি বিস্তৃত বলে বিবেচিত হয়। এই দুটি শক্তিই ভারতের রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন যে ভারতের যুবকদের যদি প্রযুক্তির আকর্ষণ থাকে, তবে গণতন্ত্রের চেতনাও রয়েছে। আজ যদি ভারতের যুবকদের শ্রমশক্তি থাকে, তবে ভবিষ্যতের স্পষ্টতা আছে, তাই ভারত আজ যা বলে, বিশ্ব তাকে আগামীকালের কণ্ঠস্বর বলে মনে করে। ভারত তার যুব সমাজকে উন্নয়নের পাশাপাশি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের শক্তি বলে মনে করে। আজ ভারত ও বিশ্বের ভবিষ্যত তৈরি হচ্ছে। ২০২২ ভারতের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর ১২৫ তম জন্মবার্ষিকীও।

ভারতের তরুণরা বৈশ্বিক সমৃদ্ধির কোড লিখছে
প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন যে আজ ভারতের যুবকরা বিশ্বব্যাপী সমৃদ্ধির কোড লিখছে। ভারতীয় যুবসমাজ বিশ্বজুড়ে ইউনিকর্ন ইকোসিস্টেমে গণ্য করা একটি শক্তি। ভারতে আজ ৫০ হাজারের বেশি স্টার্টআপের একটি শক্তিশালী ইকোসিস্টেম রয়েছে।


মহর্ষি অরবিন্দ ও সুব্রহ্মণ্যম  ভারতীর কথা মনে পড়ছে
প্রধানমন্ত্রী বলেছেন যে এই বছর আমরা শ্রী অরবিন্দের ১৫০ তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করছি এবং এই বছর মহাকবি সুব্রহ্মণ্যম  ভারতীজির ১০০তম মৃত্যুবার্ষিকীও উদযাপন করছি। পুদুচেরির সাথে এই উভয় ব্যক্তিরই একটি বিশেষ সম্পর্ক রয়েছে। দুজনেই একে অপরের সাহিত্য ও আধ্যাত্মিক যাত্রায় অংশীদার হয়েছেন।

তামিলনাডুতে ১১টি নতুন মেডিকেল কলেজ উদ্বোধন করা হবে
এর পরে, বিকেল ৪ টায়, প্রধানমন্ত্রী মোদী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তামিলনাড়ু জুড়ে ১১টি নতুন সরকারি মেডিকেল কলেজ এবং চেন্নাইয়ের সেন্ট্রাল ইনস্টিটিউট অফ ক্লাসিক্যাল তামিলের নতুন ক্যাম্পাস উদ্বোধন করবেন।

নতুন মেডিকেল কলেজগুলি প্রায় ৪,০০০ কোটি টাকা আনুমানিক ব্যয়ে স্থাপন করা হচ্ছে, যার মধ্যে প্রায় ২১৪৫ কোটি টাকা কেন্দ্রীয় সরকার এবং বাকিগুলি তামিলনাড়ু সরকার প্রদান করে। যে জেলাগুলিতে নতুন মেডিকেল কলেজ স্থাপন করা হচ্ছে তার মধ্যে রয়েছে বিরুধুনগর, নামাক্কাল, নীলগিরিস, তিরুপুর, তিরুভাল্লুর, নাগাপট্টিনম, ডিন্ডিগুল, কাল্লাকুরিচি, আরিয়ালুর, রামানাথপুরম এবং কৃষ্ণগিরি জেলাগুলি।
 

প্রধানমন্ত্রী আজ সকালেই ট্যুইটারে যুগনায়কের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তিনি লেখেন, ‘ আমি মহান স্বামী বিবেকানন্দকে তাঁর জয়ন্তীতে শ্রদ্ধা জানাই। তাঁর জীবন ছিল জাতি গঠনের জন্য নিবেদিত। তিনি তরুণদের দেশ গঠনের কাজ করতে অনুপ্রাণিত করেছেন। আমাদের জাতির জন্য তিনি যে স্বপ্ন দেখেছিলেন তা পূরণ করতে আসুন আমরা একসাথে কাজ করে যাই।’ 

এদিকে  আজ কলকাতার সিমলা স্ট্রিটে স্বামীজীর বাসভবনে পালন করা হয় বিশেষ অনুষ্ঠান। তবে করোনা পরিস্থিতিতে বাড়ির ভিতরে ভক্তদের প্রবেশ নিষেধ। তাঁদের জন্য বাইরেই শ্রদ্ধা জানানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে । স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিনে শ্রদ্ধা জানাতে সিমলা স্ট্রিটে যাওয়ার কথা  বিজেপি ও তৃণমূল নেতাদের।  সূত্রের খবর আজ স্বামীজীর জন্মভিটেতে আসতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 

বনগাঁয় ফল বিতরণ করলেন পুর প্রশাসক গোপাল শেঠ। ছবি তুলেছেন – রতন সিনহা,


স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন ও স্বাধীনতার ৭৫ বছর, এই উপলক্ষে রামকৃষ্ণ মিশন ও কেন্দ্রীয় সরকারের সংস্কৃতি মন্ত্রক একগুচ্ছ অনুষ্ঠানের পরিকল্পনা করেছে।  এই অনুষ্ঠান ও বিভিন্ন কর্মসূচি চলবে আগামী ১৫ অগাস্ট পর্যন্ত।

শ্রদ্ধা জানিয়েছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংহও। তিনি ট্যুইটে লিখেছেন, 

বুধবার স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন উপলক্ষে বিবেকানন্দ রোডে স্বামীজীর মূর্তিতে মাল্যদান করেন শুভেন্দু অধিকারী। ছিলেন অগ্নিমিত্রা পালও।

কলকাতায় বিজেপির সদর দফতরেও একগুচ্ছ কর্মসূচি রয়েছে।  বিবেক বাহিনীর উদ্বোধনে থাকবেন অগ্নিমিত্রা পাল, শমীক ভট্টাচার্য সহ বিজেপির অন্য নেতা নেত্রীরা।    

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here