রতন সিনহা,দিঘা: 

দেশেরসময় :দিঘার জগন্নাথ মন্দিরের নির্মাণের কাজ প্রায় শেষের পথে । পুরীর আদলে তৈরি দিঘার এই মন্দির উদ্বোধনের অপেক্ষায়। সামনেই রথযাত্রা। রথযাত্রা উৎসব উপলক্ষ্যে দিঘা জগন্নাথ মন্দিরে তৈরি হচ্ছে সুবিশাল রথ। তবে কি রথযাত্রার আগেই উদ্বোধন হবে এই মন্দিরের?

পুরীর আদলে দিঘায় তৈরি জগন্নাথ মন্দির চলতি বছরে এপ্রিল মাসে উদ্বোধন হওয়ার ঘোষণা করেছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ঘোষণার পর তোড়জোড় শুরু হয়ে যায় প্রশাসনিক মহলে। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনের কারণে থমকে যায় উদ্বোধনের কাজ। যদিও, নির্বাচনী প্রচারে এসে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, দিঘার জগন্নাথ মন্দিরে নির্মাণ কাজ প্রায় শেষের পথে। ভোট শেষ হলেই মন্দিরের উদ্বোধন হবে। উদ্বোধনে সকলকে উপস্থিত থাকার কথাও জানান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে, নির্দিষ্ট কোনও তারিখ এখনও জানানো হয়নি ।

এদিকে, আগামী ৭ জুলাই রথযাত্রা উৎসব। প্রতিবছর রথ টানা হয় এখানে। এবারেও তাঁর অন্যথা হবে না। নতুন ভাবে বড় আকারে একটি রথ নির্মাণের কাজ শুরু হয়েছে মন্দির প্রাঙ্গণে। রথযাত্রার আগেই কি দিঘার জগন্নাথ মন্দির উদ্বোধন হবে? তৈরি হয়েছে জল্পনা।

পুরীর রথযাত্রা উৎসব জগৎ বিখ্যাত। জগন্নাথ দেবের মন্দির দর্শন, রথযাত্রার সাক্ষী থাকতে পুরীতে হাজির হন লাখ লাখ ভক্ত। বাংলার জগন্নাথ মন্দির উদ্বোধনের জন্য রথযাত্রার সময়টিই বেছে নেওয়া হতে পারে বলেই সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে।

স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যে কারা মন্ত্রী অখিল গিরির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘মন্দির নির্মাণের কাজ প্রায় শেষের পথে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যেদিন ঠিক করবেন সেদিন মন্দিরের উদ্বোধন হবে।’ তাঁর কথায়, প্রতি বছর এখানে রথ উৎসব হয়ে থাকে। এবারেও হবে। তবে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মন্দির উদ্বোধনের দিনক্ষণ ঘোষণার পরেই মন্দির উদ্বোধন হবে।

প্রসঙ্গত, পর্যটকদের জন্য দিঘাতেই জগন্নাথ মন্দির তৈরির কথা ঘোষণা করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এরপরেই চলে জমির খোঁজ। অবশেষে নিউ দিঘা স্টেশন সংলগ্ন নন্দকুমার ১১৬বি জাতীয় সড়কের পাশে এই মন্দিরটি তৈরি হয়েছে। কাজ প্রায় শেষের পথে। মন্দিরটি তৈরির জন্য কত টাকা খরচ হচ্ছে?

জানা গিয়েছে, সংশ্লিষ্ট প্রকল্পের জন্য ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে রাজ্য সরকার। ২০১৮ সালে এই মন্দির তৈরির ঘোষণা করেছিল রাজ্য। পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের মতোই উচ্চতা হবে দিঘার মন্দিরটিরও। পাশাপাশি মন্দিরের পারিপার্শ্বিক নকশাও কিছুটা এক থাকছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here