দেশের সময় ওয়েবডেস্কঃ পেটে অসহ্য যন্ত্রণা হত মেয়েটির। দিন কয়েক ধরে চলছিল নাগাড়ে বমি। হাসপাতালে নিয়ে গেলেই আসল সত্যি সামনে আসে। এন্ডোস্কোপি করে চমকে যান ডাক্তাররা। পাকস্থলীর ভিতরে দলা পাকিয়ে আছে গোছা গোছা চুল, সেই সঙ্গে প্লাস্টিকের প্যাকেট।

ঘটনা কোয়েম্বত্তূরের। ভিজিএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে কিশোরীকে। ডাক্তাররা বলেছেন, অস্ত্রোপচারে মেয়েটির পাকস্থলী থেকে প্রায় হাফ কিলোগ্রাম চুল বার হয়েছে। সেই সঙ্গে কয়েকটা শ্যাম্পুর পাউচ। এই সবকিছুই দীর্ঘদিন ধরে জমা হচ্ছিল মেয়েটির পাকস্থলীতে। অস্ত্রোপচারে দেরি হলে মেয়েটির প্রাণ সংশয়ের সম্ভাবনা ছিল।

বছর তেরোর মেয়েটি সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। তার পরিবার জানিয়েছে, কাছের এক আত্মীয়ের মৃত্যুর পরে মেয়েটি মানসিক অবসাদে চলে যায়। মাথার গণ্ডগোলও দেখা দিয়েছিল। তার চিকিৎসাও চলছে। কোন ফাঁকে রোজ দলা দলা চুল খেত মেয়েটি সেটা জানতেও পারেনি পরিবারের লোকজন। একদিন হঠাৎ করেই বমি শুরু হয় মেয়েটির। সঙ্গে অসহ্য পেটের ব্যথা। বমির সঙ্গে রক্তও বার হয়। সঙ্গে সঙ্গেই তাকে হাসপাতালে নিয়ে যান ডাক্তাররা।

সার্জন গোকুল কৃপাশঙ্কর বলেছেন, মেয়েটিকে যখন হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল, সে যন্ত্রণায় ছটফট করছিল। এন্ডোস্কোপিতেই ধরা পড়ে মেয়েটির পাকস্থলীর ভিতরে চুল জড়িয়ে রয়েছে। সবকিছু জড়িয়ে পাকিয়ে বলের মতো হয়ে আছে পাকস্থলীর ভিতরে। সার্জনের কথায়, “আমরা সঙ্গে সঙ্গেই অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নিই। টানা কয়েক ঘণ্টার সার্জারিতে পাকস্থলী থেকে সমস্ত চুল ও শ্যাম্পুর প্যাকেট বাইরে বার করা হয়।”

ভিজিএম হাসপাতালের চেয়ারম্যান ভি জি মোহনপ্রসাদ জানিয়েছেন, মেয়েটির অবস্থা স্থিতিশীল। তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। সতর্ক করা হয়েছে পরিবারকে। ফের এমনভাবে চুল বা প্লাস্টিকের পাউচ গিলে খেলে তীব্র সংক্রমণ ছড়িয়ে মৃত্যুও হতে পারে কিশোরীর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here