দেশের সময় ওয়েবডেস্কঃ কোভিড টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে ঐশ্বর্য রাই বচ্চন এবং আরাধ্যার। মুম্বইয়ের নানাবতী হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়ে বাড়ি গিয়েছেন তাঁরা।

টুইট করে এ কথা জানিয়েছেন অভিষেক বচ্চন। টুইট করে জুনিয়র বচ্চন লিখেছেন, “আপনাদের সকলের প্রার্থনা এবং শুভেচ্ছার জন্য ধন্যবাদ। আরাধ্যা এবং ঐশ্বর্যর রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। হাসপাতাল থেকে ছাড়া হয়েছে ওদের। ওরা এখন বাড়িতে থাকবে। আমি আর বাবা ডাক্তারদের পরামর্শে হাসপাতালেই থাকছি।”

জুলাই আরাধ্যা এবং ঐশ্বর্যের কোভিড টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছিল। প্রাথমিক ভাবে বাড়িতেই আইসোলেশনে ছিলেন তাঁরা। পরে মৃদু উপসর্গ দেখা দিলে নানাবতী হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাঁদের। দশদিন হাসপাতালে থাকার পর অবশেষে আজ ২৭ জুলাই ছুটি পেয়েছেন তাঁরা।

আরাধ্যা এবং ঐশ্বর্যের পজিটিভ রিপোর্ট আসার আগের দিন অর্থাৎ ১১ জুলাই রাতে টুইট করে অমিতাভ বচ্চন জানান তিনি করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। তার খানিকক্ষণ পর টুইট করে অভিষেক জানান করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তিনিও। সেই রাতেই বাবা-ছেলেকে ভর্তি করা হয় নানাবতী হাসপাতালে। তবে বচ্চন পরিবারের চার সদস্য করোনায় আক্রান্ত হলেও জয়া বচ্চনের রিপোর্ট এসেছিল নেগেটিভ।

যদিও বচ্চনদের চারটি বাংলোই এরপর সিল করে দেয় বৃহন্মুম্বই মিউনিসিপাল করপোরেশন। বচ্চনদের বাংলো এবং তার আশেপাশের এলাকাকে কন্টেইনমেন্ট জন হিসেবে চিহ্নিত করে বিএমসি কর্তৃপক্ষ। শুরু হয় স্যানিটাইজেশনের প্রক্রিয়াও। তবে গতকাল ২৬ জুলাই রবিবার বচ্চনদের বাংলোগুলোকে কন্টেইনমেন্ট ফ্রি জোন হিসেবে ঘোষণা করেছে বিএমসি।

এর মধ্যে গত বৃহস্পতিবার দুপুরে আচমকাই রটে যায় যে অমিতাভের কোভিড টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। নিমেষে ছড়িয়ে পড়ে সেই খবর। তার ঘণ্টা খানেকের মধ্যেই অবশ্য টুইট করে বিগ বি জানান তাঁর কোভিড টেস্টের রিপোর্ট নেগেটিভ আসেনি। বরং এই খবর সম্পূর্ণ ভুয়ো এবং মিথ্যে বলেও জানান বর্ষীয়ান অভিনেতা।

অমিতাভ এবং অভিষেক করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর বচ্চন পরিবারের বাকি সদস্যদের পাশাপাশি বিগ বি এবং জুনিয়র বচ্চনের সংস্পর্শে আসা মোট ৫৪ জন কর্মীর সোয়াব টেস্ট করানো হয়। এঁদের মধ্যে ২৮ জনকে আগেই কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছিল। বাকি ছিলেন ২৬ জন। যাঁরা সকলেই বচ্চনদের ‘জলসা’ বাংলোয় কর্মরত। অমিতাভ-অভিষেকের সরাসরি সংস্পর্শে থাকায় এঁদের কোভিড টেস্টের রিপোর্ট পজিটিভ আসার প্রবল সম্ভাবনা ছিল। তবে এই ২৬ জন কর্মীর রিপোর্টই নেগেটিভ এসেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.