অর্জুন-গড়ে, বিজেপির বনধে সার্বিক সাড়া ব্যারাকপুরে

0
609

দেশের সময়ঃ ব্যারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং-এর উপর হামলার প্রতিবাদে আজ ব্যারাকপুর লোকসভা বনধের ডাক দিয়েছিল বিজেপি। সোমবার সকাল থেকেই কার্যত শুনশান অর্জুন-গড়। বেশিরভাগ দোকানপাঠ বন্ধ। খোলেনি স্কুল কলেজ।

এমনকী ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলের সবকটি জুটমিলও বন্ধ রয়েছে। কাঁকিনাড়া, জগদ্দল, ব্যারাকপুর, শ্যামনগর স্টেশনেও বিক্ষিপ্তভাবে রেল অবরোধ চলছে। রাস্তাতেও বিভিন্ন জায়গায় অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাচ্ছে বিজেপি। তবে এখনও কোনও জায়গা থেকে গন্ডগোলের কোনও খবর আসেনি।

সোমবার সকাল থেকেই বনধের প্রভাব পড়তে শুরু করে ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে। প্রথমে বলা হয়েছিল, রেলকে বনধের আওতার বাইরে রাখা হবে। কিন্তু সকাল ছটা থেকে কাঁকিনাড়া স্টেশনে এক নম্বর লাইনে আপ ট্রেনকে আটকে রেখে বেশ কিছুক্ষণ বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মীরা। ফলে সকাল থেকে মাঝমধ্যেই ব্যহত হয়েছে শিয়ালদহ মেন শাখায় রেল চলাচল।


ব্যারাকপুরের ঘোষপাড়া রোড-এর বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি কর্মী সমর্থকদের পথ অবরোধ করে। এলাকার দোকানপাট সমস্ত বন্ধ। সকালে খোলা হয়নি এলাকার স্কুল-কলেজও। রাস্তাঘাটেও লোকজনের সংখ্যা খুবই কম। গাড়ি চলাচল করছে না বললেই চলে। মেন রোডের দু’পাশে সার দিয়ে দাঁড় করানো রয়েছে লরি। বিক্ষিপ্তভাবে লোকজন রাস্তায় চলাচল করছেন।

বিজেপির ডাকা এই বনধের প্রভাব পড়েছে ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলের প্রাণকেন্দ্র জুটমিলগুলোতেও। এই মুহূর্তে এই অঞ্চলে ১২টি জুটমিল পুরো দমে কাজ করে। সব কটি মিলই বন্ধ। সকাল থেকেই জুটমিলের বাইরে বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মীরা। সব জায়গায় ১২ ঘণ্টার বন্ধ হলেও জুটমিল গুলিতে শিফটের কাজ হওয়ায় ২৪ ঘণ্টায় বন্ধ থাকবে বলে জানা গিয়েছে।

তবে এখনও পর্যন্ত কোনও জায়গা থেকে অশান্তির খবর আসেনি। কোনও রকমের উত্তেজনা যাতে না হয়, তার জন্য তৈরি আছে পুলিশ। বিজেপি কর্মীদের সঙ্গে যেন লুকোচুরি খেলা চলছে তাঁদের।

কাঁকিনাড়া স্টেশনে অবরোধ করলে সেখান থেকে তাঁদের পুলিশ তুলে দিলে অররোধ শুরু হচ্ছে জগদ্দল স্টেশনে। সেখান থেকে থেকে তুলে দিলে শ্যামনগর স্টেশনে। রাস্তাতেও মাঝেমধ্যেই বিজেপি কর্মীদের জটলাকে সরিয়ে দিচ্ছে পুলিশ। ফের অন্য জায়গায় বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন তাঁরা।


এই ঘটনায় ইতিমধ্যেই সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছেন মুকুল রায়। টুইট করে বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা লিখেছেন, “, “গোটা ঘটনা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে জানিয়েছি।” তিনি আরও লিখেছেন, “রাজ্য পুলিশ গোটা ঘটনা ধামাচাপা দিতে চাইছে। আমি সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়েছি।”

Previous articleমাথা ফাটল অর্জুনের, ফের রণক্ষেত্র জগদ্দল
Next articleএনআরসি নিয়ে উদ্বিগ্ন মমতা,পথে নামছে তৃণমূল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here